Mr. Nurul Islam Nahid,
Minister of Education

bullet1 ICT in education in Bangladesh

Published: 27 Apr 2009

As part of the BanglaOS project supported by the Spanish Cooperation Agency, IT46 is attending a Capacity Building Workshop on Using ICT in Education and formulating the ICT master plan for Bangladesh.

PRESSRELEASE: Nation moves one step towards digital Bangladesh - ICT in education in master plan soon

Bangladesh is moving one step ahead in making digital Bangladesh – master plan for ICT in education is going to be prepared soon. The government, stakeholders and development partners began a journey of formulating the ICT in Education Master Plan of Bangladesh through the first step- the Capacity Building Workshop on Using the ICT in Education Toolkit for Policymakers, Planners and Practitioners, started on 27th and will finish on 30 April 2009.

ডিজিট্যাল বাংলাদেশের পথে আরেক ধাপ শীঘ্রই তৈরি হচ্ছে শিক্ষায় তথ্যপ্রযুক্তি ব্যবহারের কর্মপরিকল্পনা বর্তমান সরকারের বহুল প্রতিশ্রুত ডিজিট্যাল বাংলাদেশেরে পক্ষে আরেকধাপ এগুলো বাংলাদেশ। শিক্ষাক্ষেত্রে তথ্যপ্রযুক্তির ব্যবহারের কর্মপরিকল্পনা তৈরি করতে যাচ্ছে সরকার। এ লক্ষ্যে শুরু হয়েছে চারদিন ব্যাপী প্রশিক্ষণ কর্মশালা – ঢাকাস্থ ব্যানবেইস কার্যালয়ে। ইউনেস্কো, ইউএনডিপি এবং স্পেনের উন্নয়ন সংস্থার সহযোগিতায় আয়োজিত এই কর্মশালায় অংশ নিচ্ছেন ৩০ জনেরও বেশি সরকারী ও বেসরকারী সংস্থার নীতিনির্ধারক ও পরিকল্পনাবিদ এতে অংশ নিচ্ছেন। শিক্ষায় তথ্যপ্রযুক্তি ব্যবহারের জন্য সক্ষমতা বাড়াতে এবং পরবর্তীতে বাংলাদেশের জন্য একটি কর্মপরিকল্পনা প্রণয়নে কাজ করার জন্য সক্ষমতা বৃদ্ধিই এই কর্মশালার উদ্দ্যেশ। বর্তমান সরকার গত জানুয়ারিতে ক্ষমতায় আসার সময় একটি প্রতিশ্রুতি ছিল তথ্যপ্রযুক্তিতে দেশের ব্যাপক জনগোষ্ঠীকে প্রশিক্ষিত করে বাংলাদেশকে ডিজিট্যাল বাংলাদেশ হিসেবে গড়ে তোলা। বর্তমান সরকার ইতোমধ্যে আগের শিক্ষানীতিসমূহ পর্যালোচনার ভিত্তিতে দ্রুততম সময়ের মধ্যে নূতন একটি শিক্ষানীতি প্রণয়নের কাজে হাত দিয়েছে। শিক্ষায় তথ্যপ্রযুক্তিকে সমন্বয়ের এই সময়োপযোগী উদ্যোগ শিক্ষাকে একুশশতকের উপযোগী করে তুলবে নি:সন্দেহে।

One of the agenda of this government is to make the country ‘digital’ through ICT capable and ICT enhanced education and making the people fit for the 21st century challenges. After coming to power in January this year, this government has already taken initiative to reformulate the education policy and now going to explore how ICTs can best be integrated and enhance quality of education.

Mr. Nurul Islam Nahid, Hon’ble Minister for Education, while speaking as Chief Guest for the inaugural session of the workshop, reiterated his government’s commitment to ensure quality education and making Bangladesh a digital nation. He hoped that this workshop will enable the policymakers, planners and practitioners to recommend policy changes to integrate ICT in education and prepare ICT in master plan. This government has already approved ICT policy 2008 and ICT laws. Among others Mr. Malama Meleisea, Director and Representative, UNESCO, Mr. Anir Chowdhury, Policy Advisor, Access to Information Programme of Prime Minister’s Office spoke the occasion. The speakers at the inaugural session underscored the need for designing ICTs in education keeping in the mind the needs of underprivileged and under-reached people.

Policymakers around the world face four basic obstacles – lack of awareness on how ICT can help improve the education sector; lack of technical capacity to develop policies to effectively integrate ICT in the education system; lack of leadership to implement what has been planned and agreed; and lack of effective coordination among the different agencies supposed to implement the national ICT in Education Master Plans. All these will be discussed by the participants during the workshop. But this is just the first step.

UNESCO, UNDP, and the Spanish Cooperation Agency are joining hands to assist government planners and policymakers make sure that the ICT in Education Master Plan is realized and approved within the shortest possible time. The draft master plan should be ready in a few months to be followed by a series of public consultations that will ensure that future initiatives in ICT in Education reflects the real needs of the people of Bangladesh. That’s a journey worth taking.

More than 30 policymakers, planners and practitioners from government and non-government agencies dealing with education and ICTs are attending the 4-day workshop at BANBEIS Bhaban.

--

বর্তমান সরকারের বহুল প্রতিশ্রুত ডিজিট্যাল বাংলাদেশেরে পক্ষে আরেকধাপ এগুলো বাংলাদেশ। শিক্ষাক্ষেত্রে তথ্যপ্রযুক্তির ব্যবহারের কর্মপরিকল্পনা তৈরি করতে যাচ্ছে সরকার। এ লক্ষ্যে শুরু হয়েছে চারদিন ব্যাপী প্রশিক্ষণ কর্মশালা – ঢাকাস্থ ব্যানবেইস কার্যালয়ে। ইউনেস্কো, ইউএনডিপি এবং স্পেনের উন্নয়ন সংস্থার সহযোগিতায় আয়োজিত এই কর্মশালায় অংশ নিচ্ছেন ৩০ জনেরও বেশি সরকারী ও বেসরকারী সংস্থার নীতিনির্ধারক ও পরিকল্পনাবিদ এতে অংশ নিচ্ছেন। শিক্ষায় তথ্যপ্রযুক্তি ব্যবহারের জন্য সক্ষমতা বাড়াতে এবং পরবর্তীতে বাংলাদেশের জন্য একটি কর্মপরিকল্পনা প্রণয়নে কাজ করার জন্য সক্ষমতা বৃদ্ধিই এই কর্মশালার উদ্দ্যেশ।

বর্তমান সরকার গত জানুয়ারিতে ক্ষমতায় আসার সময় একটি প্রতিশ্রুতি ছিল তথ্যপ্রযুক্তিতে দেশের ব্যাপক জনগোষ্ঠীকে প্রশিক্ষিত করে বাংলাদেশকে ডিজিট্যাল বাংলাদেশ হিসেবে গড়ে তোলা। বর্তমান সরকার ইতোমধ্যে আগের শিক্ষানীতিসমূহ পর্যালোচনার ভিত্তিতে দ্রুততম সময়ের মধ্যে নূতন একটি শিক্ষানীতি প্রণয়নের কাজে হাত দিয়েছে। শিক্ষায় তথ্যপ্রযুক্তিকে সমন্বয়ের এই সময়োপযোগী উদ্যোগ শিক্ষাকে একুশশতকের উপযোগী করে তুলবে নি:সন্দেহে।

শিক্ষামন্ত্রী জনাব নুরুল ইসলাম নাহিদ প্রধান অতিথির ভাষণে তথ্যপ্রযুক্তিভিত্তিক ডিজিট্যাল বাংলাদেশ গড়ার প্রতিশ্রুতি পুনর্ব্যক্ত করেন, এবং সেই সাথে শিক্ষাকে যুগোপযোগী ও মানসম্পন্ন করার ইচ্ছেও পুনর্ব্যক্ত করেন। এক্ষেত্রে বর্তমান সরকার কর্তৃক অনুমোদিত তথ্যপ্রযুক্তি নীতিমালা ২০০৮ এবং তথ্যপ্রযুক্তি আইন অনুমোদনের কথাও তিনি উল্লেখ করেন।

বিভিন্ন দেশে নীতিনির্ধারকগণ তথ্যপ্রযুক্তিকে শিক্ষাক্ষেত্রে ব্যবহারে আগ্রহ হলেও অনেক ক্ষেত্রেই তা বাস্তবায়িত হয় না মূলত সুসংহত পরিকল্পনার কারণে। আর পরিকল্পনার অভাব ঘটে শিক্ষায় তথ্যপ্রযুক্তির ব্যবহারের ব্যাপারে পুরো সচেতন না হওয়ার কারণে, তথ্যপ্রযুক্তির ব্যাপক ভূমিকা ও সম্ভাবনা বিবেচনা করতে না পারায়, এবং সর্বোপরি সঠিক নেতৃত্বের অভাবে। শিক্ষায় তথ্যপ্রযুক্তির ব্যবহার একটি বহুপক্ষীয় বিষয়, এবং এতে অনেকজনের অংশগ্রহণ ও তাদের সমন্বয় আবশ্যিক। বহুপক্ষের মধ্যে সমন্বিতভাবে কাজ করার জন্য একটি জাতীয় কর্মপরিকল্পনা সহায়ক হতে পারে।

Posted by: ICT in Education Workshop

Please complete the following calculation in the text field below.
10 + 8
Alias
Headline
Language
Comment